বঙ্গবন্ধু ওয়েজ আর্নার্স সেন্টার
Home » News  »  বঙ্গবন্ধু ওয়েজ আর্নার্স সেন্টার
বঙ্গবন্ধু ওয়েজ আর্নার্স সেন্টার

রেমিটেন্স যোদ্ধাদের বিদেশে যাওয়া-আসার পথে আবাসন সমস্যা সমাধানে উদ্যোগ নিয়ে ও কোন লাভ হয় নি কারো ।

হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক   বিমানবন্দর সংলগ্ন ‘বঙ্গবন্ধু ওয়েজ আর্নার্স সেন্টার’ নির্মাণ করেছে ওয়েজ আর্নার্স কল্যাণ বোর্ড।

দিনে মাত্র দুইশ টাকা খরচ করে এখানে থাকতে পারেন প্রবাসী কর্মীরা। বিমানবন্দরে যাতায়াতও ফ্রি। কিন্তু উদ্বোধনের পর প্রচারণার অভাবে ফাঁকাই থাকছে প্রায় ৩০ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত এ সেন্টার।

প্রবাসী কর্মীরা বলছেন, দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে ফ্লাইটের এক-দুদিন আগে অনেকে ঢাকায় আসেন। ওঠেন আশপাশের আবাসিক হোটেলে। যাদের সাধ্য নেই, তারা বিমানবন্দরের অভ্যন্তরে বসে মশার কামড় খান। কিন্তু প্রচারণার অভাবে তাদের কেউ বঙ্গবন্ধু ওয়েজ আর্নার্স সেন্টারের খোঁজ জানেন না।

তবে ওয়েজ আর্নার্স কল্যাণ বোর্ডের সংশ্লিষ্টরা জানান, বঙ্গবন্ধু ওয়েজ আর্নার্স সেন্টার চালুর পর পত্রপত্রিকা-টেলিভিশনে অনেক বিজ্ঞাপন দেওয়া হয়েছে। প্রচার করা হয়েছে সেন্টারের সুযোগ-সুবিধার কথা। তারপরও আশানুরূপ ফল পাওয়া যাচ্ছে না। এখন পর্যন্ত সেন্টারের ৯৯ শতাংশ শয্যাই ফাঁকা থাকছে। তাই প্রচারের কাজটি আরও জোরদার করার পরিকল্পনা নিচ্ছেন তারা।

জানতে চাইলে ওয়েজ আর্নার্স কল্যাণ বোর্ডের পরিচালক (প্রশাসন ও উন্নয়ন) মুশাররাত জেবীন  বলেন, প্রবাসী কর্মীদের জন্য এই সেন্টারটি স্থাপন করা হয়েছে। এখানে অনেক কম মূল্যে তারা থাকতে এবং খেতে পারবেন। তবে প্রবাসীরা সেখানে কম যাচ্ছেন। এই সেন্টারের সেবা সম্পর্কে আরও প্রচারণা চালানো হবে।

সরকার প্রবাসীদের কাছে শুধু রেমিট্যান্স চায়। কিন্তু তাদের জন্য ন্যূনতম সুযোগ-সুবিধা দিতে চায় না। এখন বঙ্গবন্ধু ওয়েজ আর্নার্স সেন্টার যদি নির্মাণ করেও থাকে, তা প্রচারে সরকারের ব্যর্থতা রয়েছে।

ওয়েজ আর্নার্স সেন্টারে শুধু আবাসন নয়, এখানে প্রবাসী কর্মীদের অন্যান্য সুযোগ-সুবিধাও রয়েছে। এই সুযোগ-সুবিধাগুলোর মধ্যে বিদেশগামী ও ফেরত প্রবাসী কর্মীরা একশ টাকা ফি দিয়ে সরাসরি বা অনলাইনে ভর্তির আবেদন করতে পারবেন। একজন কর্মী আবেদন করতে পারবেন একটি সিটের জন্য। প্রতি রাতের জন্য সিট ভাড়া ২শ টাকা এবং প্রতিবার সর্বোচ্চ দুই রাত অবস্থান করা যাবে। অবস্থানের ক্ষেত্রে পাসপোর্ট ও এয়ার টিকিটের কপিসহ লাগবে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র।

বিমানবন্দর থেকে সেন্টারে যাতায়াতের জন্য ফ্রি পরিবহন সুবিধা রয়েছে। সেফ লকারে লাগেজসহ মূল্যবান মালামাল সংরক্ষণের ব্যবস্থা, টেলিফোন সুবিধা, ইন্টারনেট ব্যবস্থা, নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহের ব্যবস্থা করা হয়েছে সেন্টারটিতে।

এছাড়া কর্মীদের জন্য কাউন্সিলিং ও মোটিভেশনের ব্যবস্থা, প্রাথমিক চিকিৎসা, প্রয়োজনে হাসপাতালে ভর্তির ব্যবস্থাসহ সাশ্রয়ী মূল্যে খাবারের ব্যবস্থা করা হয়েছে এই সেন্টারে। নারী-পুরুষের জন্য আলাদা নামাজের ব্যবস্থাও এখানে রয়েছে। এখানে প্রবাসী কর্মীদের রি-ইন্টিগ্রেশন (পুনঃএকত্রীকরণ) এবং অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা বা করণীয় সম্পর্কে ব্রিফিং করা হয়। ফলে বঙ্গবন্ধু ওয়েজ আর্নার্স সেন্টারটি প্রবাসী কর্মীদের একত্রিত হওয়ার এবং পারস্পরিক অভিজ্ঞতা বিনিময়ের জন্য একটি উপযুক্ত স্থান, যা দেশে এই প্রথম।

১০০ টাকা দিয়ে বঙ্গবন্ধু ওয়েজ আর্নার্স সেন্টারে সরাসরি বা অনলাইনে বুক করার সুযোগ রয়েছে। অনলাইনে বুকিংয়ের জন্য ০১৩১০৩৫০৫৫৫, ০১৭৫৪৭১৫৭২০ নম্বরে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ করা যাবে। এ ছাড়া www.wewb.gov.bd ওয়েবসাইটে সেন্টারের ব্যবহার নির্দেশিকা পাওয়া যাবে।

সম্প্রতি বিমানবন্দর সড়কে তীব্র যানজট সৃষ্টি হচ্ছে। বিশেষ করে বিআরটিএ প্রকল্পের কাজের জন্য এই সমস্যা বেশি দেখা যাচ্ছে। এর মধ্যে যদি ভারি বৃষ্টিপাত হয়, তাহলে এই সড়কে যানবাহন চলাচল স্থবির হয়ে যায়। এতে অসংখ্য যাত্রী নির্ধারিত সময়ে বিমানবন্দর যেতে পারছেন না, ফ্লাইট মিস করছেন। তাই বঙ্গবন্ধু ওয়েজ আর্নার্স সেন্টারের প্রচারণা বাড়লে ফ্লাইট মিসের হার অনেকটাই কমবে বলে মনে করে বঙ্গবন্ধু ওয়েজ আর্নার্স সেন্টার এবং বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *